কমবে সময়, উত্তরবঙ্গকে বড় উপহার রেলের! দক্ষিণবঙ্গ থেকে ট্রেনে যাওয়া আরও হবে সহজ

আপনি কি কখনও ভারতীয় ট্রেনে (Train) ভ্রমণ করেছেন? প্রতিদিন বিপুল সংখ্যক মানুষ ট্রেনে যাতায়াত করে নিজেদের গন্তব্যে পৌঁছায়। ভারতীয় রেল (Indian Railways) যাত্রীদের সুযোগ-সুবিধার বিশেষ যত্ন নেয়। এর জন্য নানা ধরনের সিদ্ধান্তও নেওয়া হয়। এবারও কিন্তু তার ব্যতিক্রম ঘটল না। বিশেষ করে আপনিও যদি পশ্চিমবঙ্গের (West Bengal) বাসিন্দা হয়ে থাকেন তাহলে আপনার জন্য রইল একদম সোনায় সোহাগা খবর।

বাংলার জন্য ইতিমধ্যে কয়েকশ কোটি টাকা বরাদ্দ করা হয়েছে। এখন নিশ্চয়ই ভাবছেন যে ভারতীয় রেলের তরফে কী এমন সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে? তাহলে বিস্তারিত জানতে ঝটপট পড়ে ফেলুন এই প্রতিবেদনটি। আসলে দুটি রেলপথে বৈদ্যুতিকরণের কাজ চলছে জোরকদমে। ইতিমধ্যে নিউ কোচবিহার (New Cooch Behar) থেকে বামনহাট (Bamanhat) পর্যন্ত রেলপথে বিদ্যুতিকরণের কাজ শুরু করেছে রেল।

   

অন্যদিকে নিউ ময়নাগুড়ি রেল স্টেশনের কাছের ওয়াইলেগ থেকে নিউ চ্যাংরাবান্ধা রেল স্টেশন হয়ে নিউ কোচবিহার অবধি বৈদ্যুতিকরণের কাজ শেষ। এই দুটি প্রকল্পের জন্য রেলের ১০০ কোটি টাকা খরচ হবে বলে খবর। আর এই দুটি প্রকল্পের কাজ জোরকদমে করছে ইরকন সংস্থা।

আপনি জানলে অবাক হবেন, চলতি বছরের আগামী ৩১ মার্চ নিউ ময়নাগুড়ি থেকে চ্যাংরাবান্ধা হয়ে নিউ কোচবিহার অবধি ট্রেন চলার লক্ষ্য নেওয়া হয়েছে। এই বিষয়ে রেলের আলিপুরদুয়ার ডিভিশনের ডিভিশনাল কমার্শিয়াল ম্যানেজার অঙ্কিত গুপ্ত বড় মন্তব্য করেছেন। তিনি জানিয়েছেন, সীমান্ত এলাকার সঙ্গে রেলপথে যোগাযোগ পরিষেবা উন্নত করতে বৈদ্যুতিকরণ হলে লাভ হবে।

সবথেকে বড় কথা, এই রেলপথে বৈদ্যুতিকরণ হলে উত্তরবঙ্গ এক্সপ্রেসকে (Uttar Banga Express) শিয়ালদহ (Sealdah) থেকে নিউ কোচবিহারে আসার পর আর ইলেকট্রিক ইঞ্জিন পরিবর্তন করে ডিজেল ইঞ্জিন লাগানোর প্রয়োজন হবে না। রেলের পরিকল্পনা অনুযায়ী, দিনহাটা ও বামনহাট সেকশনে আগামী দিনে আরও বেশি ট্রেন চালানো সম্ভব হবে। চলতে পারে বাংলাদেশের উদ্দেশ্যে ট্রেন। ইতিমধ্যে বিদ্যুতের যাবতীয় গুরুত্বপূর্ণ সরঞ্জাম এই রেলপথের দু ধারে বসানোর কাজ চলছে।

বিগত ৭ বছর ধরে সাংবাদিকতার পেশার সঙ্গে যুক্ত। ডিজিটাল মিডিয়ায় সাবলীল। লেখার পাশাপাশি বিভিন্ন ধরনের বই পড়ার নেশা।

সম্পর্কিত খবর