Indian Railways: প্রতীক্ষার অবসান! এবার আসছে বন্দে ভারত ট্রেনের দ্বিতীয় নয়া সংস্করণ, ছুটবে বিদ্যুৎ গতিতে

ভারতীয় রেলের (Indian Railways) শীর্ষতাজ বন্দে ভারত এক্সপ্রেস। এই হাইস্পিড রেল এমনিতেই অনেক গতিতে ছুটতে পারে। কিন্তু ট্রেনটির পরবর্তী ভার্সনও তৈরি করে ফেলেছে রেল। স্বয়ং রেলমন্ত্রী অশ্বিণী বৈষ্ণব এই ট্রেনটির প্রোটোটাইপের উন্মোচন করেন। এর আগে দেশে দুটি প্রোটোটাইপ ছুটতে থাকার পর এবার তৃতীয় ট্রেন ট্র্যাকের ওপর ছুটতে থাকবে।

শুক্রবার চেন্নাইতেই এই হাইস্পিড ট্রেনের উদ্বোধন করেন রেলমন্ত্রী। তবে প্রথম দুটির থেকে সম্পূর্ন আলাদা হবে এই ট্রেনটি, কারণ এই ট্রেনে আগের দুটি ট্রেনের থেকে শিক্ষা নিয়ে আরো উন্নত করা হয়েছে। এমনকি সাজসজ্জাতেও এসেছে অনেকখানি পরিবর্তন। আপাতত ট্রায়াল চালানো হবে এই ট্রেনের।

ঘণ্টায় ১৬০ কিমি গতিবেগে ছুটতে শুরু করবে এই ট্রেনটি। রাজ্যবাসীর জন্য সুখবর এই যে, ট্রেনটি দুর্গাপুজোর আগেই ট্র্যাকে নামবে। আপাতত খুবই সীমিত বন্দে ভারত এক্সপ্রেস চালালেও পরে সব রাজ্যেই ছুটবে এরকম ট্রেন। আপনাদের জানিয়ে দিই যে, মোদী সরকারের লক্ষ্য আগামী ৪ বছরে এরকম ৪৭৫টি ট্রেন চালানোর। বর্তমানে দুটি বন্দে ভারত এক্সপ্রেস ছুটছে। একটি নয়া দিল্লি থেকে বারাণসী যায় আর অন্যটি যায় নয়া দিল্লি থেকে কাটরা স্টেশন অবধি।

কী নতুন বৈশিষ্ট্য রয়েছে এই ট্রেনে :

১) জানা যাচ্ছে প্রথম পরিবর্তন এসেছে ট্রেনের ক্ষমতায়। আগে যেখানে ১৮০ সেকেন্ড লাগত ১৬০ কিমি এর স্পীডে পৌঁছাতে, এখন সেখানে মাত্র ১৪০ সেকেন্ড লাগবে।

২) আগে ট্রেনের নিজস্ব ব্যাটারির মেয়াদ ছিল মাত্র ১ ঘণ্টা, নতুন এই ট্রেনে সেটি বাড়িয়ে ৩ঘণ্টা করা হয়েছে।

৩) এই ট্রেনটিকে ডিজাইন করা হয়েছে ত্বরণ রিজার্ভের জন্য। এই নয়া প্রযুক্তি কোনও ঢালে চলার সময়ও ট্রেনকে নিজের গতি বজায় রাখতে সাহায্য করবে।

৪) এছাড়া আসনের ক্ষেত্রেও বিশেষ পরিবর্তন এসেছে। নয়াপ্রযুক্তির ব্যবহারে ট্রেনের সমস্ত কামরায় পুনর্ব্যবহারযোগ্য আসন দিয়েই সাজানো হয়েছে। এছাড়া সেখানের চেয়ারগুলো ঘুরতে পারবে ৩৬০° পর্যন্ত।

এছাড়া ট্রেনে থাকবে পরিবেশবান্ধব টয়লেট, এমার্জেন্সি লাইটিংস, জিপিএস ভিত্তিক অডিয়ো-ভিস্যুয়াল প্যাসেঞ্জার ইনফরমেশন সিস্টেম, নতুন ওয়াই-ফাই এর ব্যবস্থা। এছাড়া নিরাপত্তার কারণে সেখানে কাভাচ টেকনোলজি দিয়ে সাজিয়েছে রেল।

➦ আপনার জন্য বিশেষ খবর

Back to top button