ইলন মাস্ককে টক্কর! ভারতে সবথেকে দ্রুত গতির স্যাটেলাইট ইন্টারনেট আনছে আম্বানির Jio

5G আসার পর ইন্টারনেটের দুনিয়ায় নয়া কি তথ্যপ্রযুক্তি আসতে চলেছে সেই নিয়ে অনেকেই বেশ উৎসুক। 5G এর বিশ্বব্যাপী চল শুরু না হলেও, ইতিমধ্যেই ভারত (India) সহ বিশ্বের বহু দেশ 6G ইন্টারনেটের ওপর কাজ করতে শুরু করেছে। এদিকে বিশ্বের সবচেয়ে ধনী ব্যক্তি ইলন মাস্কের (Elon Musk) মতে ইন্টারনেটের ভবিষ্যত রয়েছে স্যাটেলাইট মারফৎ ইন্টরনেট পরিষেবা প্রদানের ওপর।

টেসলা কোম্পানি ইতিমধ্যেই তাদের স্টারলিংক প্রোজেক্ট শুরু করেছে। সেখানে তারা স্যাটেলাইট মারফৎ হাই-স্পিড ইন্টারনেট সরবরাহ করে। দেশীয় কোম্পানি Airtel ও ব্রিটিশ সরকারের সাথে মিলে তাদের oneweb এর মাধ্যমে স্যাটেলাইট মারফৎ ইন্টারনেট পরিষেবা প্রদান করবে। এমতাবস্থায় জিও পিছিয়ে নেই। আম্বানির Jio এবার এই নয়া প্রযুক্তিতে হাত দিয়েছে।

   

এই পরিষেবা প্রদানের জন্য Jio টেলিকমিউনিকেশন বিভাগ (DoT) এর কাছে অনুমতি নিয়েছে গ্লোবাল মোবাইল পার্সোনাল কমিউনিকেশন স্যাটেলাইট (GMPCS) পরিষেবা চালু করার। সরকারের অনুমতি নিয়ে এই পরিষেবা প্রদান করতে চলেছে তারা। দেশে স্যাটেলাইট ইন্টারনেটের চল বাড়ানোর জন্য লো-আর্থ অরবিট (LEO), মিডিয়াম আর্থ অরবিট (MEO) এবং সেইসাথে জিওসিঙ্ক্রোনাস (GEO) স্যাটেলাইটের সাথেও কাজ করবে।

Jio তাদের স্যাটেলাইট পরিষেবা শুরু করার জন্য জিও স্যাটেলাইট কমিউনিকেশন লিমিটেড নামে একটি নয়া সংস্থা শুরু করেছে। আর টেলিকম দপ্তরের কাছে এই সংস্থাটিই অনুমতি নিয়েছে। এবার তারা নিজেদের পরিষেবা সেটআপ করতে পারবে এবং জনগণকে এই পরিষেবাও দিতে পারবে। জানিয়ে রাখি জিও এক্ষেত্রে ২০ বছরের জন্য লাইসেন্স নিয়েছে।

আগামী ২০ বছর স্যাটেলাইটের মাধ্যমে GMPCS পরিষেবার সাহায্যে ভয়েস কল এবং ইন্টারনেট পরিষেবা প্রদান করতে পারবে তারা। আর সেজন্য ইতিমধ্যেই কিছু বড় পদক্ষেপ গ্রহন করেছে আম্বানির জিও। ২০২২ এর শুরুতেই ইউরোপের লাক্সেমবার্গের কোম্পানি SES এর সাথে তারা নিজেদের অংশীদারিত্বের কথা জানায়। প্রসঙ্গত এই কোম্পানি স্যাটেলাইট এর সাহায্যে ব্রডব্যান্ড পরিষেবা প্রদান করে থাকে।

jio

Jio তাদের এই নতুন পরিষেবার মাধ্যমে Elon Musk-এর কোম্পানি স্টারলিংক এবং সুনীল মিত্তলের কোম্পানি OneWeb কে কড়া টক্কর দিতে পারবে। শুধু তাই না, বিশেষজ্ঞদের মতে Jio যে পরিকল্পনা করেছে তার ভবিষ্যত ফল যে অত্যন্ত সাফল্যমন্ডিত হবে সেই নিয়ে কোনো সন্দেহ নেই। যদিও কবে থেকে এই পরিষেবা শুরু হচ্ছে সেই নিয়ে কোনো তথ্য জানা যায়নি। তবে এই পরিষেবা শুরু হলে ভারত যে স্যাটেলাইট ইন্টারনেটের ক্ষেত্রে বিশ্বের বড় প্লেয়ার হবে সেই নিয়ে কোনো সন্দেহ নেই।

সম্পর্কিত খবর