পুজোর মধ্যেই খুলে ফেলুন মদের দোকান! সুবর্ণ সুযোগ দিচ্ছে পশ্চিমবঙ্গ সরকার, এভাবে নিন ফায়দা

একদম দরজায় কড়া নাড়ছে দুর্গাপুজো। ইতিমধ্যে বেশ কিছু জায়গার পুজোর উদ্বোধন হয়ে গেছে। অনেকেই আবার ঠাকুর দেখতে বেরিয়ে অবধি পড়েছেন। এদিকে অনেকেই আছেন যারা শেষ মুহূর্তে শপিং করতে ব্যস্ত। পুজোর কয়েকটা দিন কে, কী করবেন সেই নিয়ে ইতিমধ্যে অনেকেই অনেক ধরনের প্ল্যান ফেঁদে ফেলেছেন নিশ্চয়ই। তবে এসবের পাশাপাশি আপনিও কি এই দুর্গাপুজোর সময়ে ভালো টাকার মুখ দেখতে চান? নিজের জন্য ব্যবসা শুরু করতে চান? কী ব্যবসা (Business) করলে আপনার পকেটে টাকার পর টাকা আসবে সেটা নিয়ে ভাবছেন? তাহলে এই প্রতিবেদনটি রইল শুধুমাত্র আপনার জন্য।

   

আপনিও এই দুর্গাপুজোর সময়ে মদের দোকান বা বার খুলতে পারেন এবং টাকার মুখ দেখতে পারেন। তবে একটি বার বা মদের দোকান খোলা কিন্তু মোটেই মুখের কথা নয়। এর জন্য আপনার জন্য লাইসেন্স থাকা খুবই জরুরি বৈকি। একটি মদ লাইসেন্স এমন একটি নথি যা একটি ব্যবসাকে একটি নির্দিষ্ট স্থানে অ্যালকোহলযুক্ত পানীয় বিক্রি করার অনুমতি দেয়।

মদের লাইসেন্স সংশ্লিষ্ট রাজ্যের আবগারি বিভাগ দ্বারা জারি করা হয়। বৈধ রাষ্ট্রীয় লাইসেন্স ব্যতীত কোনও ব্যক্তির পক্ষে নেশাজাতীয় অ্যালকোহল উৎপাদন, বিতরণ বা বিক্রয় করা অবৈধ। রাজ্য সরকার বেঙ্গল এক্সাইজ অ্যাক্ট ২০১২ এর অধীনে রেস্তোঁরা, হোটেল, ক্লাব ইত্যাদির জন্য মদের লাইসেন্স অর্জন বাধ্যতামূলক করে বিভিন্ন নিয়ম ও প্রবিধান প্রতিষ্ঠা করেছে।

জানা যাচ্ছে, আপনিও যদি মদের লাইসেন্স পেতে চান তাহলে আপনাকে প্রথমেই পশ্চিমবঙ্গ সরকারের আবগারি দফতর থেকে আবেদনপত্র সংগ্রহ করতে হবে। এরপর ওই আবেদনপত্র আবগারি দফতরে জমা দিতে হবে। তাছাড়া এখন অনলাইন মাধ্যমেও মদের লাইসেন্সের আবেদন করা যায়।
কীভাবে আবেদন করবেন জেনে নিন বিস্তারিত…

liquor store west bengal wine alcohol

১) সবার প্রথমে excise.wb.gov.in এই ওয়েবসাইটে যান।
২) এরপর “Apply for new excise license” অপশনে ক্লিক করুন।
৩) এরপর “Prepare application” অপশনে যান।
৪) এখন আপনার সামনে একাধিক অপশন আসবে। আপনি যেটি চান সেটির জন্য যান।
৫) এরপরের ধাপে আপনার মোবাইল নম্বর লিখুন এবং প্রবেশ করা মোবাইল নম্বরে ওটিপি চলে আসবে।
৬) এরপর আবেদনের প্রক্রিয়া শেষ করুন তারপরে আবেদনপত্রের ফি জমা করুন।
৭) এরপর সবকিছু ঠিকঠাকভাবে সব শেষ করার পর অধিদফতর আপনাকে আপনার মদের লাইসেন্স দেবে।