মোটেই পছন্দ করতেন না গৌতমকে, তবে এভাবে বদলে যায় মন! রইল প্রীতি ও আদানির প্রেম কাহিনী

আজ সারা বিশ্ব একডাকে চেনে গৌতম আদানিকে (Gautam Adani)। তিনি বিশ্বের অন্যতম ধনী ব্যক্তি। নিজের ব্যবসায়িক জ্ঞান দিয়ে সারা বিশ্বের সামনে নিজের দক্ষতা প্রমাণ করেছেন তিনি। শুন্য থেকে শুরু করে আজ তার মোট সম্পদের পরিমাণ ১০ লক্ষ কোটি টাকা! তার উত্থান অবশ্য দেখা গিয়েছে বিগত দুই বছরে। কিন্তু অবাক করার মতো ব্যাপার হলো যে, এত সম্পদের মালিক হওয়ার পরেও গৌতম আদানির জীবনযাত্রা খুবই সাধারণ।

মানুষের মাঝে তিনি জনপ্রিয় ঠিকই, কিন্তু মাটির টান ভুলে জাননি। তার জীবনযাপন যেমন অতি সাধারণ তার বিয়ে বা জীবনের অন্যান্য কাহিনীও অতটাই সাধারণ। নিপাট ভদ্রলোক গৌতম আদানি। যদিও তাদের নিয়ে খুব বেশি জানা যায়না। আদানি এবং তার স্ত্রী প্রীতির কথা প্রথম ভালভাবে জানা যায় আর এন ভাস্করের বই ‘গৌতম আদানি: রিইমাজিনিং বিজনেস ইন ইন্ডিয়া’-থেকে।

আর এন ভাস্কর বই প্রকাশ করে সেখানে অনেক অজানা কথা তুলে ধরেছেন। সেখান থেকেই জানা যাচ্ছে যে, প্রীতি আদানি নাকি প্রথম দেখায় গৌতম আদানিকে পছন্দ করতেন না। তাদের পূর্ব পরিচিতিও থাকেনি। প্রীতির বাবা সেবন্তীলাল প্রীতির জন্য গৌতম আদানিকে পছন্দ করেছিলেন। এবং এটা সেইসময়কার কথা যখন তিনি নিজের স্নাতকের পড়াও শেষ করেননি।

প্রীতি সেইসময় ডেন্টিস্টের পাঠ পড়ছিলেন। সেই সময় থেকেই প্রীতি গৌতম আদানিকে একদম পছন্দ করেননি। তিনি বরঞ্চ মনে করেন যে, গৌতম তার জন্য মোটেই ঠিক ছিলেন না। কিন্তু প্রীতির বাবা সেবন্তীলাল তাকে বুঝিয়ে বললে শেষমেষ প্রীতি গৌতম আদানির সাথে দেখা করতে রাজি হয়ে যান। দুজনে একসাথে দেখা হলে নিজেরা কথা বলে বিয়ে করতে রাজি হন।

১৯৮৬ সালের ১ মে তাদের দুজনের বিয়ে হয়। বিয়ের পর অবশ্য প্রীতি এবং গৌতম আদানির জন্য সময়টা খুবই কঠিন ছিল। সেইসময় কাজের সূত্রে গৌতম আদানিকে দীর্ঘদিন বাইরে থাকতে হতো। তবে যখনই সময় পেতেন স্ত্রী ও পরিবারের সঙ্গেই সময় কাটাতেন। আর এন ভাস্করের বই অনুসারে, প্রীতি বলেছেন যে গৌতম শীঘ্র তার কাজ শেষ করার চেষ্টা করতেন এবং বাকি সময়ের পুরোটাই বাড়িতে দিতেন।

gautam adani all companies

প্রীতি আদানি এবং গৌতম আদানি নিজেদের বিয়ের ৩৬ বছর পূর্ণ করেছেন। আর আজও দুজনের মধ্যে সমান ভালবাসা রয়েছে। সম্প্রতি গৌতম আদানির ৬০ তম জন্মদিনে একটি পুরানো ছবি টুইটারে শেয়ার করে প্রীতি লিখেন, ‘৩৬ বছরেরও বেশি আগে আমি আমার কেরিয়ার ছেড়ে গৌতম আদানির সাথে একটি নতুন যাত্রা শুরু করেছি। আজ যখন পেছনে তাকাই, মানুষটার জন্য অনেক শ্রদ্ধা ও গর্ব হয়। তার ৬০ তম জন্মদিনে, আমি তার সুস্বাস্থ্যের জন্য প্রার্থনা করি এবং তার সমস্ত স্বপ্ন পূরণ হোক।’

➦ আপনার জন্য বিশেষ খবর

Back to top button