চমৎকার করে দিল বিহারের মহিলা, PVC পাইপেই চাষ করে বানিয়ে দিল একের পর এক সবজি

সারা পৃথিবী জুড়ে এমন অনেক মানুষের দেখা পাবেন যারা তাদের সৃজনশীলতার কারণে জ্ঞাতসারে বা অজান্তে এমন কিছু উদ্ভাবন করে থাকেন যা অন্যান্য মানুষকে অনুপ্রাণিত করে। আজ আমরা এমন একজন সৃজনশীল মানসিকতার মহিলার কথা বলতে যাচ্ছি, যিনি সবজি চাষের (Farming) একটি নতুন উপায় আবিষ্কার করে সবাইকে অবাক করে দিয়েছেন। প্রসঙ্গত, বর্তমান প্রজন্ম রাসায়নিক সারের ক্ষতি এড়াতে অর্গানিক পদ্ধতিতে ফল ও সবজি চাষ করছেন।

আজ আমরা যে মহিলার কথা বলছি, তিনি কোনো বাগান বানিয়ে সবজি চাষ করেননি বরং পিভিসি পাইপ ও বাঁশের (ভার্টিক্যাল গার্ডেন) ভিতরেই সবজি চাষ করেন। তার আবিষ্কৃত চাষের এই অনন্য উদ্ভাবন দেখে কার্যত অবাক হয়ে গেছেন সবাই। বিহারের চাপড়ার বাসিন্দা সুনীতা প্রসাদ তার সৃজনশীল চিন্তাভাবনা দিয়ে চাষের এই অনন্য উপায় আবিষ্কার করেছেন। বাঁশের মধ্যে চাষ করার এই অভিনব পদ্ধতিটিকে উল্লম্ব বাগান বলা হয়। উল্লেখ্য, ভার্টিক্যাল গার্ডেন একটি খুব কার্যকরী কৌশল, যার মাধ্যমে কম জায়গায়ও প্রচুর সবজি চাষ করা যায়।

সুনীতা এই বুদ্ধিটা কিভাবে পেলেন ?

সুনীতা এমনিতেই সবজি চাষের শৌখিন। ঘরের কোনো বাসনপত্র ভেঙে পড়লে সুনীতা শখের বশে তাতে মাটি ভরাট করে গাছ লাগাতেন। সুনীতার কথায় জানা যায়, তিনি যখন স্ক্র্যাপ ডিলারের কাছে বাড়ির বর্জ্য পদার্থ বিক্রি করছিলেন, তখন তাদের সাইকেলে একটি পাইপ দেখতে পান। সেই পাইপটি কিনে বারান্দায় ফেলে রেখে দেন। সময়ের সাথে সাথে সেই পাইপে মাটি জমতে থাকে এবং সেই সাথে মাটিতে কিছু ঘাসও জন্মে। প্রকৃতির এই কীর্তি দেখে সুনীতার ধারণা হল এই পাইপের মধ্যেও তো সবজি চাষ করা যায়।

এই প্রচেষ্টা সফল হলে সুনীতা আরো একটি পদ্ধতিতে চাষের কথা ভাবেন। বাঁশ কেটে তার মধ্যে মাটি ভরে সবজি চাষের চেষ্টা করেন তিনি। এরপর তিনি বাঁশ আর পাইপ দিয়ে উলম্ব বাগান তৈরি করে তার মধ্যে প্রায় সব ধরনের মৌসুমি সবজি চাষ শুরু করেন।

প্রসঙ্গত পিভিসি পাইপের খরচের কথা বলা হলে, দুটি ৫ ফুট পিভিসি পাইপের দাম প্রায় ১০০০ টাকা। একটি পিভিসি পাইপে প্রায় ৪ থেকে ৫ ধরনের সবজি চাষ করা সম্ভব নয়। তবে খরচ কমাতে চাইলে ১০ থেকে ২০ টাকা মূল্যের বাঁশ নিয়ে সেটিকে চার ভাগে কেটে এই বাঁশের চারপাশে প্লাস্টিক লাগিয়ে তার বাগান তৈরি করতে হবে। এই বাঁশের বাগান তৈরি করতে খরচ হবে মাত্র ৩৫-৪০ টাকা।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, সুনীতা তার এই বাগানে এখনও পর্যন্ত পিভিসি পাইপে বেগুন, বাঁধাকপি, স্ট্রবেরি ইত্যাদি বিভিন্ন ধরণের সবজি চাষ করেছেন। স্থানীয় মানুষ সুনীতার এই অভাবনীয় পরিকল্পনা দেখে প্রশংসা না করে থাকতে পারেনা।

প্রসঙ্গত, চাষের এই অদ্ভুত প্রযুক্তির জন্য সুনীতা ‘কিষাণ অভিনব সম্মান’-এর মতো অনেক পুরস্কারে ভূষিত হয়েছেন। সুনীতার কথায়, উল্লম্ব চাষ পদ্ধতিতে যেসব সবজি চাষ করা হয় তা মানুষের স্বাস্থ্যের জন্যও ভালো এবং একই সঙ্গে চাষের খরচও কম হয়। সুনীতা আশা করেন যে চাষের এই পদ্ধতি ধীরে ধীরে ছড়িয়ে পড়বে সারা ভারতে।

➦ আপনার জন্য বিশেষ খবর

Back to top button