ছেড়েছেন ১১টি সরকারি চাকরি, কঠোর পরিশ্রম করে আজ সফল IAS অফিসার কৃষকের ছেলে

বর্তমানে প্রত্যেকেই চায় একটি সরকারি চাকরির পেতে। কিন্তু চাকরি পাওয়ার সাথে সাথে ভবিষ্যতে নিজের কেরিয়ারে সাফল্য পাওয়ার জন্য পড়াশোনা করে এমন মানুষ খুব কমই আছে। বেশিরভাগ মানুষই তাদের সারা জীবন শুধু একটি সরকারি চাকরিতেই কাটিয়ে দেয়। কিন্তু আজ আমরা আপনাদের এমন এক কৃষকের ছেলের গল্প শোনাবো যে সরকারি চাকরি পাওয়ার পরও তার স্বপ্নের জন্য হাল ছাড়েনি।

তার নাম শ্যাম সুন্দর বিষ্ণোই। সরকারি চাকরি পাওয়ার পরও চালিয়ে যান নিজের চেষ্টা। তার কঠোর পরিশ্রমের জোরেই আজ তিনি রাজস্থানের প্রশাসনিক (RAS) অফিসার হয়েছেন। শুধু তাই নয়, এর আগে ১১ বার ছেড়েছেন সরকারি চাকরি। এরপর সবশেষে রাজস্থান প্রশাসনিক বিভাগে অফিসারের পদ পেয়েছেন।

রাজস্থানের বিকানের জেলার গুলুওয়ালি গ্রামের বাসিন্দা শ্যাম সুন্দর বিষ্ণোই একজন কৃষক পরিবারের সন্তান। তার পিতার নাম ধুদারাম বিষ্ণোই এবং মাতার নাম সুশীলা দেবী। গ্রামেরই একটি সরকারি স্কুল থেকে প্রাথমিক শিক্ষা লাভ করেন তিনি। ছোটবেলা থেকেই পড়াশোনায় ভালো ছিলেন তিনি। এরপর বিকানেরের মহারাজা গঙ্গা সিং বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতক হন। তিনি একই কলেজ থেকে ভূগোল ও ইতিহাসে এমএ এবং বিএড সম্পন্ন করেন।

সুন্দর জানান, পড়াশোনার পাশাপাশি বাবার সঙ্গে কৃষিকাজও করতেন তিনি। তার পরিবার সম্পূর্ণভাবে কৃষির উপর নির্ভরশীল ছিল। শ্যাম সুন্দরের দুই ভাই সন্দীপ কুমার, পবন এবং এক বোন সুমিত্রা। সন্তানদের লেখাপড়ার ব্যাপারে তার বাবা সব সময় ছিলেন অত্যন্ত যত্নবান। তার বাবা তার পুত্র এবং কন্যাকে সমানভাবেই শিক্ষা দিতেন। তার ছোট ভাই সন্দীপ কুমার রাজস্থান পুলিশে একজন কনস্টেবল। একই সাথে দ্বিতীয় ভাই পবন প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছেন।

শ্যাম সুন্দরের বিয়ে করেন মনীষা বিষ্ণোইকে। মনীষা এমএ, বিএড এবং এলএলবি করেছেন। তাদের তিন বছরের একটি মেয়ে মনস্বী রয়েছে। শ্যাম সুন্দর বিষ্ণোই বলেন, যখন তিনি আরএএস পরীক্ষার প্রস্তুতি নিতে শুরু করেন তখন তার একই সাথে প্রেমসুখ দেলু বিকানের থেকে আইপিএস হওয়ার লক্ষ্যে ইউপিএসসির জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন। প্রেমসুখ দেলু শ্যাম সুন্দরের খুড়তুতো ভাই। শ্যাম সুন্দর তার ভাই প্রেমসুখ দেলুর কঠোর পরিশ্রম ও নিষ্ঠা দেখে খুব মুগ্ধ হয়েছিলেন।

তিনি বলেন ৫ বছরে তিনি ১২ বার চাকরি পেয়েছেন। কিন্তু অফিসার হওয়ার আগ পর্যন্ত সমস্ত চাকরিই ছেড়ে দেন তিনি। শ্যাম সুন্দর বিষ্ণোই এর কঠোর পরিশ্রমের ফলেই তিনি ২০১৬ সালে রাজস্থানের প্রশাসনিক পরিষেবা পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন। বর্তমানে, তিনি আজমির এসিএম পদ থেকে চিতোরগড় মহকুমা আধিকারিক হিসাবে কাজ করছেন।

➦ আপনার জন্য বিশেষ খবর

Back to top button