কম্পিউটার থাকলেই কেল্লাফতে, চাকরির সুযোগ দিচ্ছে পশ্চিমবঙ্গ সরকার! এভাবে নিন ফায়দা

আপনিও কি বেকার? আপনিও কি চাকরির (Job) জন্য হন্যে হয়ে এদিক সেদিক ছুটে বেড়াচ্ছেন? আপনিও কি পশ্চিমবঙ্গের (West Bengal) বাসিন্দা? তাহলে আপনার জন্য রইল একটি সুবর্ণ সুযোগ। আপনার জন্য এবার চাকরি ঝুলি খুলে দিল পশ্চিমবঙ্গের সরকার (Government Of West Bengal)। হ্যাঁ একদম ঠিক শুনেছেন। আপনার কাছে যদি শুধুমাত্র ল্যাপটপ বা ডেস্কটপ থেকে থাকে তাহলেই হবে।

ইতিমধ্যেই রাজ্যের একাধিক জায়গায় বাংলা সহায়তা কেন্দ্র খোলা হয়েছে সরকারের তরফে। যদি আবার এবার থেকে রেশনের দোকানগুলোতেও এই সহায়তা কেন্দ্র খোলার ব্যাপারে একটি সিদ্ধান্ত নেওয়া হতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে এই মর্মে খাদ্য দপ্তর রাজ্যের প্রতিটি রেশনের দোকানে বাংলা সহায়তা কেন্দ্র খোলার জন্য একটি প্রস্তাব ইতিমধ্যেই গ্রহণ করেছে এমনকি এই বিষয়ে খাদ্য দপ্তরের তরফ থেকে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছে একটি পাঠানো হয়েছে তবে এখনো এই বিষয়ে কোনো রকম চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত আসেনি।

   

জানা যাচ্ছে, রাজ্যের ২৩টি জেলায় বর্তমানে সময়ে ৩৬০০ বাংলা সহায়তা কেন্দ্র রয়েছে। সেখানে মোট ৭,১২০-এরও বেশি মানুষ জন কর্মরত। রাজ্যের প্রতিটি পঞ্চায়েতে বিএসকে (BSK) স্থাপনের লক্ষ্যমাত্রা পূরণ করা হবে বলে খবর। এরই সঙ্গে প্রতিটি রেশনের দোকানেও এই সহায়তা কেন্দ্র খোলার কথা অবধি তোলা হয়েছে। এদিকে এই সহায়তা কেন্দ্র খোলার পিছনে সরকারের একটি বিশেষ ট্রাটেজি রয়েছে রেশন তোলার জন্য আমজনতাকে রেশনের দোকানে আসতে হয় সেখানে যদি এই বাংলা সহায়তা কেন্দ্র পরিষেবা খোলা হয় তাহলে সহজেই মানুষ সেখানে ভিড় জমাবেন আর এক্ষেত্রে ডিলাররাও কিছুটা হলো টাকার মুখ দেখবেন এবং লাভবান হবেন বলে জানা গিয়েছে। এমনকি আয়ও বাড়বে।

job india

যদিও এখানে একটি বিষয় বলে রাখা জরুরী বাংলা সহায়তা কেন্দ্র চালু করার জন্য পরিকাঠামো গত এবং পরিচালন ব্যয় সংক্রান্ত সবকিছুই ডিলারকেই বহন করতে হবে। এদিকে, একাধিক জায়গায় যদি বাংলা সহায়তা কেন্দ্র চালু করা হয় তাহলে সেখানে সবকিছু সুষ্ঠুভাবে পরিচালনা করার জন্য কিছু মানুষকে তো নিয়ম অবশ্যই করতে হবে সেক্ষেত্রে এখানে কর্মসংস্থানের অনেকটাই সুযোগ চোখে পড়ছে। কমন সেন্টার এবং বাংলা সাহিত্য কেন্দ্র একাধিক জায়গায় খোলা হলে যারা কম্পিউটার জানেন সেই সকল বেকার যুবক-যুবতীরা যথেষ্ট চাকরি পাবেন বলে মনে করা হচ্ছে।

সম্পর্কিত খবর