মাথা ঘুরিয়ে দেওয়া তথ্য! পার্থর সঙ্গে হুবহু মিল পাওয়া গেল প্রসেনজিৎ-র

বর্তমানে বাংলা সরগরম পার্থ চট্টোপাধ্যায় ও অর্পিতা মুখোপাধ্যায়কে নিয়ে। একদিকে তাঁরা যেমন দুর্নীতির দায়ে হাজতবাসে আছেন, তেমনই তাদের সম্পর্ক নিয়েও চলছে চুলচেরা বিশ্লেষণ। সোশ্যাল মিডিয়ার এদিক-ওদিক চাইলেই এখন পার্থ-অর্পিতাকে নিয়ে নানারকম মিম দেখা যায়।

আর পার্থ-অর্পিতার মধ্যেই হারিয়ে গিয়েছেন বাংলার সেরা জুটি শোভন-বৈশাখী। তবে, তাদের এ নিয়ে আক্ষেপ নেই। আর এরই মধ্যে পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের সঙ্গে যোগসূত্র পেল নেটিজেনরা। একটু খোঁজ খবর করতেই সেখানে নাম উঠে এল প্রসেনজিৎ চ্যাটার্জিরও! এযেন একেবারে কেঁচো খুঁড়তে কেউটে উদ্ধার। কিন্তু কিরকম যোগাযোগ রয়েছে দুজনের মধ্যে?

স্বাভাবিক দৃষ্টিতে দেখলে জানা যায় যে, প্রসেনজিৎ এর প্রথম ছবির নায়িকা ছিলেন অর্পিতা। সেই সূত্রে পার্থর সঙ্গে কী সম্পর্ক বেরিয়েছে প্রসেনজিৎ-এর? আসলে এই ব্যাপারে প্রথম আলোকপাত করে একটি মিম পেজ। সেখানে তারা একটি পোস্টে প্রসেনজিৎ চ্যাটার্জী এবং পার্থ চ্যাটার্জীর মধ্যে মিল খুঁজে বের করে। চলুন দেখি কী কী মিল রয়েছে তাদের।

১) প্রথমত দুজনেরই নামের আদ্যক্ষর P।

২) দুজনেরই টাইটেল চ্যাটার্জী

৩) প্রসেনজিৎ নিজেকেই ইন্ডাস্ট্রি মনে করতেন, আর পার্থ ছিলেন ইন্ডাস্ট্রি মিনিস্টার।

৪) প্রসেনজিৎ এর তৃতীয় স্ত্রী এর নাম অর্পিতা আর পার্থর ‘বিশেষ’ ঘনিষ্ট বান্ধবীও অর্পিতা।

৫) এছাড়া প্রসেনজিৎও একসময় টাকা চুরির মামলায় ফেঁসে ছিলেন, তবে সেটা সিনেমায়। আর পার্থ চ্যাটার্জীর টাকা চুরি নিয়ে নতুন করে বলার কিছু নেই।

৬) ছবিতে দেখা গিয়েছে প্রসেনজিৎকে তার মা দল থেকে তাড়িয়ে দিচ্ছেন, আবার পার্থ চ্যাটার্জীকে নাই নাই করেও দল থেকে বহিস্কার করতে বাধ্য হন মমতা। যদিও এতে তার ভয়ের শেষ ছিলনা, যদি পার্থ চ্যাটার্জী গোঁসা করে আর কারো নাম বলে দেন।

৭) সিনেমাতে প্রসেনজিৎ এর ভাইপো বলা হয় সোহম চক্রবর্তীকে, আবার দলগত ভাবে অভিষেক বন্দোপাধ্যায় পার্থ চ্যাটার্জীর ভাইপো।

মিম পেজের সেই পোস্ট শেশার করেন বিখ্যাত প্রযোজক রানা সরকার। তবে এজন্য প্রসেনজিৎ এর ভক্তদের রোষানলে পড়তে হয়েছে তাকে। প্রসঙ্গত জানিয়ে রাখি, যে প্রসেনজিৎ এর বিরুদ্ধে সারা ইন্ডাস্ট্রি মুখে কুলুপ এঁটে থাকে সেই প্রসেনজিৎকে বহুবার তুলোধোনা করেন রানা সরকার।

➦ আপনার জন্য বিশেষ খবর

Back to top button