১ কিমি চলতে খরচ ৬০ পয়সা, সহজেই জ্বালানী বাহনকে কনভার্ট করুন ইলেকট্রিক গাড়িতে

নয়া দিল্লিঃ দেশে পেট্রোল ও ডিজেলের ক্রমবর্ধমান দামে সাধারণ মানুষ উদ্বিগ্ন। সে কারণেই মানুষ ইলেকট্রিক ও CNG গাড়ির দিকে ঝুঁকছে। কারণ এই দুটি গাড়িই পেট্রোল ও ডিজেলের তুলনায় খুবই সস্তা এবং ভালো বলেই প্রমাণিত হচ্ছে বর্তমান যুগে। দেশে বৈদ্যুতিক গাড়ি নিয়ে ট্রেন্ড চলছে, সবাই তাদের পুরানো ডিজেল গাড়ি বিক্রি করে বৈদ্যুতিক গাড়ি কেনার কথা ভাবছে, কিন্তু আপনাকে এমন একটি উপায় বল্যতে চলেছি, যা আপনাকে একদিকে যেমন সাশ্রয়ী করে তুলবে, তেমনই অন্যদিকে গাড়িওবিক্রি করতে হবে না।

আপনি খুব কম খরচেই নিজের গাড়িটিকে বৈদ্যুতিক গাড়িতে রূপান্তর করতে পারেন। আসুন বিস্তারিত জানাই। আপনাদের বলে দিই যে, দেশে এমন অনেক সংস্থা রয়েছে যারা 4 থেকে 5 লাখ টাকা খরচ করে একটি জ্বালানী গাড়িকে বৈদ্যুতিক গাড়িতে রূপান্তর করতে পারে। এর খরচ অনেকটাই নির্ভর করে মোটর এবং ব্যাটারির ক্ষমতার উপর, তথ্য অনুযায়ী, 12 kWh লিথিয়াম-আয়ন ব্যাটারি এবং 20 kW ইলেকট্রিক মোটরের দাম হতে পারে 4 লাখ টাকা পর্যন্ত।

এখন আপনারা ভাবছেন কোথা থেকে নিজের গাড়িটিকে বৈদ্যুতিক গাড়িতে রূপান্তর করতে হবে। তাহলে আপনাদের বলে দিই যে, রূপান্তরের সাথে জড়িত বেশিরভাগ সংস্থাগুলি হায়দ্রাবাদে রয়েছে। প্রধানগুলি হল ইট্রায়ো এবং নর্থওয়ে। এই দুটি সংস্থাই যে কোনও পেট্রোল বা ডিজেল গাড়িকে বৈদ্যুতিক গাড়িতে রূপান্তর করতে দক্ষ।

এছাড়াও, রাজধানী দিল্লিতে এমন অনেক কোম্পানি রয়েছে যারা জ্বালানী গাড়িকে বৈদ্যুতিক গাড়িতে রূপান্তর করতে কাজ করে। আপনি WagonR, Alto, Dzire, i10, Spark বা অন্য কোনো পেট্রোল বা ডিজেল গাড়িকে বৈদ্যুতিক গাড়িতে রূপান্তর করতে পারেন। এখন আপনারা ভাবছেন যে ডিজেল থেকে বৈদ্যুতিক গাড়িতে রূপান্তর করার সুবিধা কী হবে? আপনাদের বলে দিই যে, নেক্সনের বৈদ্যুতিক সংস্করণের সাথে আমরা যদি বিদ্যুতের দাম হিসাবে 6 টাকা প্রতি ইউনিট বিবেচনা করি তবে তা সম্পূর্ণরূপে চার্জ করতে 181.2 খরচ হবে।

181.2 টাকা খরচের পর এই গাড়িটি প্রায় 300 কিমি চলবে। এইভাবে এটির খরচ প্রতি কিলোমিটারে 60 পয়সা হবে। এইভাবে আপনি এক বা দুই বছরের মধ্যেই একটি বৈদ্যুতিক কিট পাওয়ার সমান খরচ বাঁচাতে সক্ষম হবেন।

➦ আপনার জন্য বিশেষ খবর

Back to top button