‘সুনীতি না দুর্নীতির টাকা, তা দেখার দায় নেই’, বনিকে ED ডাকতেই মুখ খুললেন চিরঞ্জিত

চিরঞ্জিত চক্রবর্তী (Chiranjeet Chakraborty) ইন্ডাস্ট্রির একজন নামি অভিনেতা এবং সেইসাথে রাজ্যের শাসকদল তৃণমূলের একজন বিধায়কও বটেন। বরাবরই শাসকদলের হয়ে ব্যাটিং করে এসেছেন তিনি। এবারও তার অন্যথা হয়নি। তিনি মাঠে নেমে পড়েছেন নিয়োগ দুর্নীতিতে (Recruitment Scam) অভিযুক্ত বনি সেনগুপ্তর (Bonny Sengupta) হয়ে।

এদিকে কেন্দ্রীয় গোয়েন্দাদের বক্তব্য, নিয়োগ দুর্নীতি নিয়ে যে কেলেঙ্কারি করেছে শাসকদল তার গভীরতা অনেকটাই। ED এর দাবী, এই টাকা ঢুকেছে বাংলা সিনে দুনিয়াতেও। টলিপাড়ায় বেশ মোটা অংকের টাকাকে কাজে লাগানো হয়েছে বলে খবর। এদিকে সেই নিয়ে বিস্ফোরক বয়ান দিয়েছেন তৃনমূল বারাসাতের তৃণমূল বিধায়ক এবং অভিনেতা চিরঞ্জিত চক্রবর্তী।

80580237

চিরঞ্জিতের কাছে জানতে চাওয়া হয় যে, তিনি এসমস্ত ঘটনায় হতাশ কিনা, জবাবে তৃণমূল নেতা বলেন, “হতাশ হই না। হওয়ার কোনও কারণও নেই। কারণ এটা যুগ যুগ ধরে চলছে। কোনও ছবি তৈরিতে কোথা থেকে টাকা আসছে সেটা জানার দায় ইন্ডাস্ট্রির নয়। কারণ টাকা আসবে। তা সুনীতির টাকা নাকি দুর্নীতির টাকা, এ বিচার করার দায়িত্ব ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রির নেয়নি। তাহলে বোধহয় ছবিই হতো না।”

তার কথায়, “বহু টাকা বহুভাবে আসে। আমি যতদূর জানি, ব্ল্যাক মানি হোয়াইট করতে আসেন অনেকেই। প্রথম জীবন থেকেই শুনে আসছি এরকম হয় নাকি। এক্ষেত্রে আমার মনে হয় না কোনও পরিচালক প্রযোজকের ঠিকুজি কুষ্ঠি নিয়ে ছবি শুরু করেছে।”

1164849 bonny

তৃণমূল নেতার আরো বক্তব্য, “এভাবে কেউ এক্সপোজ হলে খারাপ তো লাগেই। একটা ছোট্ট ছেলে, সবে কেরিয়ার শুরু হয়েছে, সে যদি টাকা পাওয়ার জন্য জড়িয়ে যায়। সে হয়ত পারিশ্রমিক হিসাবে নিয়েছে, সেটা কী সোর্স থেকে এসেছে তা তো জেনে করেনি। এত হইহই চলছে এটা নিয়ে। দুর্ভাগ্যজনক।”

যদিও চিরঞ্জিত বলেননি কিভাবে উঠতি সময়েই এত মোটা অংকের টাকা পেলেন বনি সেনগুপ্ত। অথবা কেন অগ্রিম নিয়েও ছবি করলেন না তিনি। তার কথায়, “চেকে পেমেন্ট হলে কে দিয়েছে, সেই লোকটা কীভাবে টাকা করেছে, সেটা তো প্রোডাকশন দেখবে, শিল্পী দেখবে না। এটা কালো দাগ বলে ধরলে হবে না।”

➦ আপনার জন্য বিশেষ খবর

Back to top button