পৃথিবীর মতই নতুন গ্রহের খোঁজে চীন, খুঁজে পেল চমৎকার তথ্য

মঙ্গল গ্রহ ছাড়িয়ে এবার দ্বিতীয় বিশ্বের সন্ধান শুরু করে দিয়েছে চীন। ভারতের সাথে দেশটির যতই বৈরিতা থাক, একথা অস্বীকার করার উপায় নেই যে প্রযুক্তিগত দিক দিয়ে যথেষ্ট এগিয়ে গিয়েছে তারা। সম্প্রতি চীনের স্পেস এজেন্সি মঙ্গল গ্রহ ছাড়িয়ে আরো দূরে দেখার পরিকল্পনা নিয়েছে। এক মিডিয়া রিপোর্ট থেকে জানা যাচ্ছে যে, চীন তাদের স্পেস টেলিস্কোপ দিয়ে সৌরজগতের মধ্যে একটি গ্রহকে দেখতে শুরু করেছে যা একেবারেই পৃথিবীর মতোই জীব বসবাসের উপযুক্ত।

চীনের লক্ষ্য হয়ে দাঁড়িয়েছে, আমরা যে গ্রহে বাস করি হুবহু তার মতোই আরেকটি গ্রহ খুঁজে বের করা। এই মিশনটির নাম ‘মিশন আর্থ 2.0’। চীনের স্পেস অ্যাকাডেমির দাবি অনুযায়ী সেই ধরণের গ্রহ খুঁজেও পেয়েছে তারা। একথা তো কারোরই অজানা নয় যে, বর্তমানে আমাদের জানা মহাবিশ্বের একমাত্র জায়গা যেখানে জীবনের অস্তিত্ব রয়েছে তা হলো পৃথিবী। এযাবৎ জানা তথ্য অনুযায়ী মহাবিশ্বে পৃথিবীই একমাত্র গ্রহ যেখানে প্রাণের বসবাসের উপোযোগী সমস্ত উপাদান রয়েছে।

আমরা আকাশে যত নক্ষত্র দেখতে পাই তার চেয়ে কয়েক কোটিগুণ বেশি গ্যালাক্সি রয়েছে এই বিশ্ব ব্রহ্মাণ্ডে, যেখানে রয়েছে কোটি কোটি নক্ষত্র। প্রতিটি গ্যালাক্সিতে রয়েছে সূর্যের মতোই এক বা একাধিক নক্ষত্র যাকে ঘিরে রয়েছে অসংখ্য গ্রহ। এবং সেখানে আছে আমাদের পৃথিবীর মতোই জীব বসবাস করার অপার সম্ভাবনা। এরকমই পৃথিবীর সামনাসামনি কোনো গ্রহে জীবনের অস্তিত্ব রয়েছে কি না তারই খোঁজ চালাচ্ছিলো চীন। দেশটির দাবি ছিলো আগামী 2026 এর মধ্যেই তারা খুঁজে বের করবে এমন একটি গ্রহ।

আর এই খোঁজ করতে গিয়েই চায়না স্পেস এজেন্সি দাবি করেছে যে তারা একটি শক্তিশালী টেলিস্কোপ দিয়ে পৃথিবীর সবচেয়ে কাছে অবস্থিত সৌরজগতে পৃথিবীর মতো এক ডজন গ্রহ চিহ্নিত করতে সক্ষম হয়েছে। এবং সংস্থাটির কাছে আর্থ 2.0 সম্পর্কে যথেষ্ট তথ্যও রয়েছে। এই মুহূর্তে চীন থেকে আসা খবর অনুযায়ী, চায়না স্পেস অ‌্যাকাডেমি প্রায় নিশ্চিত যে, তারা পৃথিবীর মতো জীবন বসবাসের জন্য উপযুক্ত অন্যান্য গ্রহ সনাক্ত করতে সক্ষম হয়েছে, যদিও নাসাও ইতিপূর্বেই পৃথিবীর মতো 250 টি গ্রহ সনাক্ত করেছে এবং নাসার দাবি অনুযায়ী সেই গ্রহগুলির মধ্যে মধ্যে 50 টি গ্রহ এমন যেখানে জীব থাকার অপার সম্ভাবনা রয়েছে। তবে সমস্যার কথা এটাই যে, যে কোনো স্যাটেলাইটেরই এইসব গ্রহে পৌঁছাতে হাজার হাজার বছর লেগে যাবে। আপনিই ভাবুন যেখানে প্লুটোতে পৌঁছাতে 9 বছর সময় লেগেছিলো সেখানে অন্য গ্যালাক্সির অন্য একটি গ্রহতে পৌঁছাতে কতটা সময় লাগতে পারে!

প্রাপ্ত খবর অনুযায়ী, এই মুহূর্তে প্রায় 300 জন বিজ্ঞানী এবং ইঞ্জিনিয়ারের একটি টিম মিশন আর্থ 2.0 তে কাজ করছে, যেখানে বিশ্বের সমস্ত জ্যোতির্বিজ্ঞানীরাও জড়িত। তবে এখনই যদি চীন বা নাসা হুবহু পৃথিবীর মতোই আরেকটি গ্রহ খুঁজে পায় তাও সেখানে যেতে পারবেনা। পৃথিবী থেকে এই গ্রহগুলির দূরত্ব হাজার হাজার আলোকবর্ষ যেখানে আলো পৌঁছাতেই হাজার হাজার বছর লেগে যায় সেখানে একটা স্যাটেলাইট দ্রুত পৌঁছে যাবে তা প্রায় অসম্ভব ব্যাপার। আর তাই চীন এখন আর্থ 2.0 স্যাটেলাইট তৈরি করছে, যেটিতে 7 টি বিরাটাকার টেলিস্কোপ থাকবে যা মহাকাশের 1.2 মিলিয়ন নক্ষত্র এবং তাদের গ্রহগুলিকে পর্যবেক্ষণ করবে এবং যদি কোনও গ্রহে প্রাণের সন্ধান পাওয়া যায় তবে এটি অন্য বিশ্বে বসবাসকারী জীবের সাথে যোগাযোগ স্থাপন করবে ।

➦ আপনার জন্য বিশেষ খবর

Back to top button