‘দান নয়, বিনিয়োগ করুন”! ভিক্ষুক ফ্রি ভারত গড়তে ভিখারিদের ব্যবসায়ী বানাচ্ছেন এই ব্যক্তি

কলকাতাঃ “দান করবেন না, বিনিয়োগ করুন” ধারণাটি যতটা সহজ শোনায় ততটাই কার্যকর৷ আপনার চিন্তাভাবনা যদি ভালো হয়, তাহলে তার এত শক্তি হবে যে সমাজকে গড়ার পাশাপাশি সঠিক পথও দেখাতে পারে। চন্দ্র মিশ্রের এমন চিন্তাভাবনা বারাণসীতে ‘বেগার্স কর্পোরেশন’ প্রতিষ্ঠা করেছে, যার লক্ষ্য ভিক্ষুকদের উদ্যোক্তা বানানো।

ভিক্ষুকদের পুনর্বাসন করতে, তাদের অর্থ উপার্জনে সক্ষম করতে এবং তাদের জীবনযাপনের সঠিক উপায় শেখাতে চন্দ্র মিশ্র 2021 সালের জানুয়ারিতে ‘বেগার্স কর্পোরেশন’ প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। তিনি মনে করেন, রাস্তায় ভিক্ষুক যেন না দেখা যায়, এর জন্য ভিক্ষুকদের পুনর্বাসন করাই যথেষ্ট নয়, প্রয়োজন তাদের মধ্যে দক্ষতার বিকাশ ঘটিয়ে তাদের উপার্জনের সঠিক উপায় দেওয়া।

বর্তমানে 12টি পরিবারের 55 জন ভিক্ষুক চন্দ্র মিশ্রের সঙ্গে রয়েছেন, যাদের তিনি ব্যবসায়ীতে পরিণত করছেন। এদের থেকে তিনি কনফারেন্স ব্যাগ, ল্যাপটপ ব্যাগ, কাগজ এবং কাপড়ের ব্যাগ তৈরি করিয়ে সাধারণ মানুষের পাশাপাশি বহুজাতিক কোম্পানি এবং বারাণসীর হোটেলগুলিতে সরবরাহ করছেন।

সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে বেগার্স কর্পোরেশনের প্রতিষ্ঠাতা চন্দ্র মিশ্র বলেন, “আমি এখানে ভিক্ষুকদের অনুদানের মাধ্যমে পুনর্বাসন করতে নয়, তাদের উদ্যোক্তা করতে এসেছি। আমি চাই তারা শ্রমের গুরুত্ব বুঝুক। আমি তাদের কর্মসংস্থান দিতে চাই এবং তাদের একটি মর্যাদাপূর্ণ জীবনযাপনে সহায়তা করতে চাই।”

তিনি আরও বলেন, “আমি জানতে পেরেছি যে ভারতে মোট 4,13,670 জন ভিক্ষুককে বছরে 34,242 কোটি টাকা দান করে মানুষ। তাই আমি ভেবেছিলাম যে যদি সেই পরিমাণ বিনিয়োগ করা হয়, তাহলে এর থেকে আরও বেশি অর্থ উপার্জন করা যেতে পারে। দানকৃত অর্থ কর্মসংস্থান সৃষ্টি এবং প্রশিক্ষণ প্রদানে ব্যবহার করা হলে তা অর্থনীতির চিত্র পাল্টে দিতে পারে।”

এই প্রকল্পের সাফল্যের জন্য তিনি সিদ্ধান্ত নিয়েছেন যে, 2023 সালের মার্চের মধ্যে বারাণসীকে ভিক্ষুক ফ্রি তৈরি করবেন। চন্দ্র মিশ্র বলেন, কাজ দেওয়ার পাশাপাশি এই ভিক্ষুকদের পরবর্তী প্রজন্মকেও শিক্ষিত করা প্রয়োজন। এ জন্য তিনি একটি মর্নিং স্কুল অব লাইফও প্রতিষ্ঠা করেছেন। এটি সাধারণ শিক্ষার একটি সমন্বিত ব্যবস্থা, যেখানে তাদের শিক্ষিত করার পাশাপাশি শিশু ভিক্ষুকদের দায়িত্বশীল নাগরিক হিসেবে গড়ে তোলার জন্য দক্ষতা প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়। চন্দ্র মিশ্র চেষ্টা করছেন যাতে আর কোনো শিশু ভিক্ষা না করে।

➦ আপনার জন্য বিশেষ খবর

Back to top button