চির বিদায় জানিয়েছেন প্রেমিকা, ঐন্দ্রিলার স্মৃতিতে ডুবে চরম সিদ্ধান্ত সব্যসাচীর! চিন্তায় সবাই

ঐন্দ্রিলা শর্মার (Aindrila Sharma) চলে যাওয়াটা মেনে নিতে পারেননি সব্যসাচী চৌধুরী (Sabyasachi Chowdhury)। প্রথমে ডিলিট করে দেন ফেসবুক অ্যাকাউন্ট। সোশ্যাল মিডিয়া (Social media) থেকে সরে আসতে চান তিনি। এরপর নিজের ইনস্টাগ্রাম অ্যাকাউন্টও ডিঅ্যাকটিভেট করে দিয়েছেন অভিনেতা।

এমনিতে সব্যসাচী চৌধুরী সোশ্যাল মিডিয়াতে খুব বেশি অ্যাক্টিভ থাকেননি। ঐন্দ্রিলা নিজে জানিয়েছিলেন যে, সোশাল মিডিয়া আমি বেশি ব্যবহার করি। ও (সব্যসাচী) ফোন বেশি ব্যবহার করে।” আর ঐন্দ্রিলা শর্মার স্বাস্থ্যের আপডেট দেওয়ার জন্যই সোশ্যাল মিডিয়াতে এত বেশি অ্যাক্টিভ হয়েছিলেন তিনি।

২০২১ সালে ঐন্দ্রিলার দ্বিতীয়বার ক্যান্সার ধরা পড়লে সব্যসাচী অনুরাগীদের জানাতেন কেমন আছেন ঐন্দ্রিলা। তার সোশ্যাল মিডিয়া জুড়ে শুধুই ঐন্দ্রিলা। ফেসবুক হোক বা ইনস্টাগ্রাম, সর্বত্রই তার স্মৃতি। কিন্তু সব্য হয়তো ভেবেছেন মনের স্মৃতিকোঠরে দেখে দেবেন সেইসব। বাইরে আর বেরোতে দেবেন না।

এদিকে সব্যসাচী যেন শক খেয়ে গিয়েছেন। পুরো স্তব্ধ হয়ে গিয়েছেন ২০ নভেম্বর থেকে। বিশেষ মুখ খুলছেন না তিনি। নিজের পরিবারের সাথে রয়েছেন, আবার কিছু সময় যাচ্ছেন ঐন্দ্রিলার কুদঘাটের বাড়ি। তার মা বাবাকেও শান্ত করার চেষ্টা করছেন। নিজের অনুভূতি প্রকাশ্যে আনছেন না তিনি। চুপচাপ দায়িত্ব পালন করে চলেছেন।

aindrila sabyasachi

সব্যসাচীর বুক ফাটলেও মুখ ফাটছে না। প্রেমিকার সাথে চির বিচ্ছেদের পরেও এক ফোঁটা জল বেরোয়নি তার চোখ দিয়ে। দুজনের বন্ডিং ছিল দারুণ। সব্যসাচীকে একরকম আগলে আগলে রাখতেন ঐন্দ্রিলা। ইন্ট্রোভার্ট স্বভাবের ছেলের দায়িত্ব তাই নায়িকাই নিয়েছিলেন। আজ অবশ্য তাকে মাঝরাস্তায় ফেলে চলে গেলেন তিনি। স্মৃতি গুলোই রয়ে গেল সব্যসাচীর কাছে।

➦ আপনার জন্য বিশেষ খবর

Back to top button