বিকিনি পরা ছবি পোস্ট অধ্যাপিকার, ৯৯ কোটি টাকার মানহানির মামলা কলকাতার কলেজের

বর্তমান দিনে ধীরে ধীরে মাত্রা ছড়িয়ে যাচ্ছে শালীনতা। শিক্ষক থেকে শুরু করে সমাজের সবার মধ্যে সদভাব, শালীনতা বোধ এগুলির অবলুপ্তির ফলে সমাজের অবক্ষয় ক্রমশ গভীর হচ্ছে। কিন্তু তাই বলে একেবারে চাকরি হারাতে হবে! সেটা বোধ হয় ভাবতে পারেননি এক অধ্যাপিকা। ঘটনাটি ঘটেছে কলকাতার সেন্ট জেভিয়ার্সে।

নিজের ব্যক্তিগত পরিসরে, সোশ্যাল মিডিয়াতে দেওয়া এক ছবির জন্য চাকরি গেল শিক্ষিকার। এব্যাপারে অধ্যাপিকার অভিযোগ ছিল যে, সোশ্যাল মিডিয়াতে নিজের প্রোফাইলে একটি ছবি পোস্ট করেছিলেন তিনি। বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ছাত্রের নজরে পড়ে সেই ছবি। সেখান থেকেই শুরু হয় বিপত্তি।

জানা যাচ্ছে যে, ওই ছাত্রের অভিভাবকরা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের কাছে পৌঁছান, আর তাদের কাছে অভিযোগ পেয়ে শীঘ্রই ওই অধ্যাপিকাকে বহিষ্কার করে কর্তৃপক্ষ। এরপর আইনি পদ্ধতিতে মাঠে নেমেছেন ওই শিক্ষিকা। শুধু তাই নয়, বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘মুখ পোড়ানো’ হয়েছে বলে তাঁর কাছ থেকে ৯৯ কোটি টাকা ক্ষতিপূরণ হিসাবে দাবি করা হয়েছিল বলেও জানিয়েছেন ওই অধ্যাপিকা। কিন্তু ঠিক কী ঘটেছিল ?

এই ঘটনায় সূত্রপাত হয় গতবছরের অক্টোবর মাসে। ২০২১ এর আগস্ট মাসে বিশ্ববিদ্যালয়ে যোগ দেন তিনি। তার কিছুদিন পর অক্টোবরে বিকিনি পরে অর্ধবসনা হয়ে ইনস্টাগ্রামে ছবি পোস্ট করেন। তার এই স্বল্পবসনা ছবি তিনি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করে নিতে চাইলেও এক ছাত্রের চোখে পড়ায় শুরু হয় বিতর্ক। সেসময় অভিভাবকদের করা অভিযোগে লেখা ছিল , ‘সোশাল মিডিয়ায় অন্তর্বাস পরে অধ্যাপিকার ছবি পোস্ট করা দৃষ্টিকটু ও অশালীন।’ তাই তাকে যেন ওই পদ থেকে বহিস্কার করা হয়।

এরপর সেন্ট জেভিয়ার্স ওই অধ্যাপিকার কাছে এই কাজের জবাবদিহি চেয়ে তাকে কাজে আসত বারণ করে দেন সেন্ট জেভিয়ার্স কর্তৃপক্ষ। প্রথমে মুষড়ে পড়লেও পরে আইনজীবীকে ডেকে এনে শুরু করেন মামলা। যদিও তার মতে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ নয়, তিনি নিজে ওই চাকরি ছেড়ে দিয়েছেন।

➦ আপনার জন্য বিশেষ খবর

Back to top button