জমিকে আইল্যান্ড বানিয়ে লাখ লাখ টাকা আয় মাধ্যমিক পাশ মহিলার, প্রশংসা করেছে গুগলও

কনৌজঃ সমস্যাকে কিভাবে সুযোগে পরিণত করতে হয় তাতে সিদ্ধহস্ত উত্তরপ্রদেশের কনৌজের কিরণ কুমারী। অনেকেই নিজের সমস্যা নিয়ে বার বার অভিযোগ করতে থাকেন। কিন্তু এই মহিলা করে দেখিয়েছেন যে, কিভাবে নিজের সমস্যাকে সুবিধায় নিয়ে আসতে হয়। সমস্যার সূত্রপাত হয় তার মাঠে জল জমে যাওয়া নিয়ে। কিন্তু তিনি এমন কিছু করে দেখিয়েছেন যা নিয়ে ইতিমধ্যেই তার প্রশংসায় পঞ্চমুখ সারা নেটমাধ্যম।

সংবাদমাধ্যমের রিপোর্ট থেকে জানা যাচ্ছে যে, কনৌজের তিরওয়া তহসিলের বুথাইয়ান গ্রামের কিরণ কুমারী রাজপুতের উমরদা ব্লকের গুন্দাহা গ্রামে রয়েছে ২৩ বিঘা জমি। কিন্তু তার প্রায় সমস্ত জমিই রয়েছে জলে ভরা। বেশিরভাগ জায়গায় জলে ডুবে থাকায় কোনো কাজে লাগাতে পারতেন না তিনি। এইজন্য তাদের মাঠের পুরো জল জমে থাকা অংশটিকে পুকুর হিসেবে পরিণত করার সিদ্ধান্ত নেন।

২০১৬ সালে জল প্লাবন যোজনার আওতায় প্রশাসনের কাছ থেকে ২ লক্ষ টাকা নিয়েছিলেন কিরণ। কিছু জমা পুঁজি আর কিছু ধার নিয়ে শুরু করেন মাছ চাষ। ২৩ বিঘা জমিতে পুকুরের কাজ শুরু করতে তার খরচ হয় ১১ লাখ টাকা। শুরুতে লাভ ছিল সামান্যই। এরপর পুকুরের মাঝখানে তিনি এক বিঘা আয়তনের একটি দ্বীপ তৈরি করেন। সেখানে আম, পেয়ারা, কলা, আমড়া, পেঁপে গাছ ও ফুল লাগিয়ে বাগান করেছেন। বর্তমানে এই দ্বীপ হয়ে ওঠেছে আকর্ষণের কেন্দ্রবিন্দু। এখন মানুষ সেই দ্বীপে ভ্রমণ করতে আসেন।

untitled design 2020 11 25t143746518 5fbe20223f038

বর্তমানে কিরণের অসুস্থতার কারণে দ্বীপটি এখন তার ছেলে শৈলেন্দ্র পাহারা দেয়। এছাড়া পুকুরে রয়েছে দেদার মাছ। তারা এখন মাছ চাষ ও ফল বিক্রি করে প্রতি বছর প্রায় ২০ থেকে ২৫ লাখ টাকা আয় করেন।  ইতিমধ্যেই দ্বীপটি দেখতে দূর-দূরান্ত থেকে মানুষ আসছেন। সবার আকর্ষণের মূল বিন্দু হয়েছে এই দ্বীপটি। এমনকি গুগলও তার কাজের প্রশংসা করেছে এবং একটি সম্মান পত্র জারি করেছে। কিরণের ছেলে শৈলেন্দ্রের জানান যে, এক বছর আগে গুগল তাকে সার্টিফিকেট দিয়েছিল।

➦ আপনার জন্য বিশেষ খবর

Back to top button